মূর্তি ইস্যুতে সরকার মুসলমানদের ধোকা দিয়েছে

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেন, অবৈধ সরকারের ইসলাম বিরোধী কুৎসিত রুপ আরেক বার জাতির সামনে প্রকাশ হয়েছে। সুপ্রিমকোর্টের সামনে গ্রীক মূর্তি স্থাপন ইস্যুতে সরকার দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের ধোকা দিয়েছে। তিনি আজ রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবিরের মাসিক সেক্রেটারিয়েট বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইনের পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ সেলিম উদ্দীন। এসময় সেক্রেটারিয়েট সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অবিলম্বে কওমি মাদ্রাসা সনদের স্বীকৃতি বাস্তবায়ন ও সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে মূর্তি অপসারণ করতে হবে

বাংলাদেশে বহুকাল ধরে হাজার হাজার কওমী মাদ্রাসা দ্বিনি শিক্ষার প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। কিন্তু দীর্ঘ দিন যাবত তাদেরকে সরকারী স্বীকৃতি থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। ন্যায্য স্বীকৃতির জন্য কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও আলেমগণ সিমাহীন পরিশ্রম ও ত্যাগ স্বীকার করেছেন। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে জামায়াতে ইসলামীর অন্যতম শীর্ষ নেতা আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে সরকারী স্বীকৃতি প্রদানের জন্য বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে জাতীয় সংসদে উত্থাপন করেন

ছাত্রশিবির দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী

ছাত্রশিবির সমৃদ্ধ দেশ গড়তে যেমন নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তেমনি দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্রের ব্যপারেও সচেতন। দেশের স্বার্থের প্রশ্নে আমাদের অবস্থান আপোষহীন। ছাত্রশিবির দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।

অপপ্রচার করে লাভ হবেনা

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেছেন, প্রতিহিংসামূলক অপরাজনীতির অন্যতম হাতিয়ার অপপ্রচার। যা আদর্শহীনরা প্রতিনিয়ত ছাত্রশিবিরের বিরুদ্ধে ব্যবহার করছে। কিন্তু অতিতে সীমাহীন অপপ্রচার করেও ছাত্রশিবিরের অগ্রযাত্রাকে দমাতে পারেনি। সুতরাং নতুন করে অপপ্রচার করে লাভ হবেনা।

সামাজিক অবক্ষয় রোধে নৈতিক শিক্ষার বিকল্প নেই

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি আতিকুর রহমান বলেছেন, নৈতিক অবক্ষয় রাষ্ট্র ও সমাজের জন্য এখন ভয়াবহ সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে। নৈতিক অধ:পতনের কারণে জাতিকে একের পর এক বিভৎস চিত্র দেখতে হচ্ছে। এই অশুভ প্রলয় থেকে জাতিকে রক্ষা করতে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের কাজ করে যেতে হবে।