শহীদ অানিসুর রহমান

১৭ জানুয়ারি ১৯৯৫ - ০১ জুলাই ২০১৬ | ২৩২

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির

শাহাদাতের ঘটনা

২.৭.১৬ . তাং ২৬ রমজান । ১৬.৬.১৬ পবিত্র মাহে রমজানের রহমতের শেষ ১০ রমজান রাত্র আনুমানিক ২.৩০ ঢাকার মোহাম্মাদপুর মোহাম্মাদীয়া সোসাইটির হাউজিং সোসাইটির ৯নং রোডের ১১ নং বাসার ৬ষ্ট তলা থেকে ঝিনাইদহের প্রশাসন স্থানীয় আদাবর থানার সহযোগিতায় ১.ইবনুল ইসলাম পারভেজ ২. আনিসুর রহমান ৩ এনামুল হককে .গ্রেফতার করে । ১৭ তাং তাদের পরিবার স্থানীয় থানায় ও ঢাকায় আদাবর থানা ও ডিবি কার্যালয়ে খোজ নেন । আদাবর থানা বিষয়টি স্বীকার করলেও স্পষ্ট কিছু বলতে অস্বীকৃতি জানান । ছেলেকে খুজে পাওয়া যাচ্ছে না এ মর্মে থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ জিডি গ্রহন করেননি । ১৭ জুন ছাত্রশিবিরের পক্ষ থেকে তাদের সন্ধান দাবী করে বিবৃতি প্রদান করা হয়। একই দাবীতে ২১ জুন সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচিও পালন করা হয়। পরিবার নিরুপায় হয়ে ছেলে কে ফিরে পেতে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

গত ১৩ জুন,১৬ শিবির নেতা শহিদ আল মাহমুদকে ঝিনাইদহ শহরের বদনপুর গ্রাম থেকে গ্রেপ্তারের সময় উপস্থিত জনতা তাদের মধ্য থেকে এসআই আমিনুর ও এসআই উজ্জলকে চিনতে পারে। অন্যদিকে রাজধানীতে গ্রেপ্তার হওয়া ৩ জনের মধ্যে ‘এনামুল’ হককে হাজির করে পুলিশ গ্রেপ্তারের বিষয়টির প্রমাণ দিয়েছে। তবুও পুলিশ তাঁদেরকে দীর্ঘদিন আটক রেখে নলডাঙ্গা সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরের পুরোহিত আনন্দ গোপাল গাগুলী নন্দ (৭০) হত্যার স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দী আদায়ের জন্য নির্মম নির্যাতন চালায়। । শত নির্যাতনের পরেও মিথ্যা স্বীকারোক্তি দিতে অস্বীকার করলে তাঁকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে । শহীদ আনিসুর রহমান কে ০১-০৭-২০১৬ ইং তারিখ রাতে ঝিনাইদহের তেতুলবাড়ীয়া নামক স্থানে কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে গুলি করে হত্যা করে পুলিশ। সাবেক ঝিনাইদহ পলিটেকনিক সভাপতি ও সংগঠনের সদস্য। কুষ্টিয়া জেলার জুগিয়া ভাটাপাড়ার সাবদার হোসেন ও জাহানারা খাতুনের ৫ সন্তানের ছোট সন্তান ।

এক নজরে

পুরোনাম

শহীদ অানিসুর রহমান

পিতা

সাবদার হোসেন

মাতা

জাহানারা খাতুন

জন্ম তারিখ

জানুয়ারি ১৭, ১৯৯৫

ভাই বোন

৩ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে সবার ছোট

স্থায়ী ঠিকানা

গ্রামঃ জুগিয়া ভাটাপাড়া, কুষ্টিয়া

সাংগঠনিক মান

সদস্য।

সর্বশেষ পড়ালেখা

বি এস সি। ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

শাহাদাতের স্থান

ঝিনাদহের তেতুলবাড়িয়া নামক স্থানে কথিত বন্দুক যুদ্ধে হত্যা করা হয়।