"২৮শে অক্টোবরের নৃশংসতা আওয়ামী জঙ্গিপনা ও হিংস্রতার নিকৃষ্ট দলিল"

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, ২০০৬ সালের #২৮শে_অক্টোবরজঘন্যতম বর্বরতার সূচনা করেছিল আওয়ামীলীগ। সেদিন আওয়ামীলীগ সন্ত্রাসীরা লগি বৈঠা হাতে তুলে নিয়ে নৃশংস ভাবে পিটিয়ে খুচিয়ে নিরাপরাধ মানুষকে খুন করে লাশের উপর নৃত্য করেছিল।

যোগ্যতা সম্পন্ন আগামী প্রজন্ম গড়তে দায়িত্বশীলদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে-শিবির সভাপতি

তিনি আজ লক্ষ্মীপুুরের এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির লক্ষ্মীপুর শহর শাখার দায়িত্বশীল শিক্ষাবৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। শহর সভাপতি আবু জাফরের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি শাহরিয়ার রহমানের পরিচালনায় দায়িত্বশীল শিক্ষাবৈঠকে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কলেজ কার্যক্রম সম্পাদক তাওহিদুল ইসলাম, নোয়াখালী শহর সভাপতি জাকির হোসেন, জামায়াতের লক্ষ্মীপুর জেলা সেক্রেটারি ও সাবেক কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক মাওলানা মফিজুল ইসলাম ও লক্ষ্মীপুর জেলা সভাপতি ফজলুল করিমসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

বিভিন্ন স্থানে এইচএসসি ও আলীম পরীক্ষায় জিপিএ প্রাপ্তদের তাৎক্ষণিক সংবর্ধনা

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেন, মেধা সম্পদে আমরা স্বয়ংসম্পুর্ণ তা আজ আবারো প্রমাণ হয়েছে। তবে কাঙ্খিত সোনার বাংলা গড়ার যোগ্য কারিগরদের অভাব রয়েই গেছে। নৈতিকতা সম্পন্ন যোগ্য নাগরিক ও নেতৃত্ব ছাড়া জাতির প্রত্যাশা পূরণ হবে না তা নিশ্চিত। এ অবস্থায় সৎ যোগ্য ও দেশপ্রেমিক নাগরিকের শুণ্যতা মেধাবীদেরকেই পুরণ করতে হবে।

সরকারের প্রশ্রয়ে দেশকে খুন ধর্ষণের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে ছাত্রলীগ

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেছেন, ছাত্রলীগের একের পর নৃশংস ও লোমহর্ষক অপকর্মে দেশের মানুষ আজ আতঙ্কিত। ধর্ষণ যেন এক মহামারিতে পরিণত হয়েছে। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়-এর মতো সর্বোচ্চ ডিগ্রী অর্জনের জায়গাও ছাত্রলীগের ধর্ষকদের হাতে নারীরা নিরাপদ নয়। বরং সরকারের প্রশ্রয়ে দেশকে খুন ধর্ষণের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে ছাত্রলীগ ।

২৮শে অক্টোবরের শহীদদের রক্ত বৃথা যাবে না

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, বাংলার জমিন থেকে ইসলামী আন্দোলনকে নির্মূল করে দিতে ২০০৬ সালের ২৮শে অক্টোবর নারকীয় বর্বরতার জন্ম দিয়েছিল আওয়ামীলীগ। নির্বিচারে হত্যা করেছিল জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের। কিন্তু তাদের উদ্দেশ্যে সফল হয়নি। শহীদেরা জীবন দিয়ে তাদের সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করেছিল। তাই শহীদেরা আমাদের প্রেরণার সুউচ্চ মিনার। ২৮শে অক্টোবরের শহীদদের রক্ত বৃথা যাবে না।

ইসলামী আন্দোলনকে নির্মূল করতে মীর কাসেম আলীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে অবৈধ সরকার

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল ইয়াছিন আরাফাত বলেন, মীর কাসেম আলী একটি কল্যাণময় সমাজ গঠনের স্বপ্ন দেখে ছিলেন। শুধু স্বপ্ন দেখা নয় বরং ইসলামের আলোকে কল্যাণময় সমাজ গঠনে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিলেন। আর তাতেই বাতিল শক্তির আতে ঘা লাগে। বাংলাদেশ থেকে ইসলামী আন্দোলনকে নির্মূল করতে পরিকল্পিত ভাবে মীর কাসেম আলীকে হত্যা করেছে অবৈধ সরকার।

ইসলামী আন্দোলনকে নেতৃত্ব শূন্য করতেই সরকার মীর কাসেম আলীকে হত্যা করেছে

জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ছাত্রশিবিরের প্রথম কেন্দ্রীয় সভাপতি জননেতা মীর কাসেম আলীকে রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিচার বিভাগীয় হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

শহীদদের স্বপ্ন পূরণে আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি আতিকুর রহমান বলেছেন, নৃশংস বর্বরতার প্রতিক ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্রলীগসহ বাতিলপন্থী ছাত্রসংগঠন গুলোর হত্যা নির্ভর রাজনীতির শিকার হয়ে সেদিন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ প্রান্তর শিবির নেতাকর্মীদের রক্তে লাল হয়ে গিয়েছিল। বর্বরদের সেই নৃশংসতা আজও অব্যাহত আছে। কিন্তু ছাত্রশিবির দমে যায়নি। বরং শহীদদের স্বপ্ন পূরণে আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

শহীদ হাফেজ জসিম উদ্দিনের রুহের মাগফিরাত কামনায় বিভিন্ন স্থানে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

পুলিশের নৃশসংসতায় ঝিনাইদহের শিবির নেতা শহীদ হাফেজ মো. জসিম উদ্দিনের শাহাদাতের সর্বোচ্চ মর্যাদা কামনায় দেশের বিভিন্ন স্থানে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে ছাত্রশিবিরের বিভিন্ন শাখা।

নাটক সাজিয়ে শিবির নেতাকর্মী হত্যাকারীদের কাঁঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল ইয়াছিন আরাফাত বলেছেন, আদর্শিকভাবে ছাত্রশিবিরকে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে সরকার গুম, খুন ও হত্যার পথ বেছে নিয়েছে।